ঢাকা বৃহঃস্পতিবার, ১৭ই অক্টোবর ২০১৯, ৩রা কার্তিক ১৪২৬


বঙ্গবন্ধু সহচর ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছন্দু মিঞার মৃত্যু বার্ষিকী


১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:৩৯

আপডেট:
১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:৫৭

ফাইল ছবি

অমিত রাউৎ, ডেস্ক রিপোর্টার: গত ১২ ই সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখ মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, নরসিংদীর রায়পুরা থানার আওয়ামী লীগ নেতা মরহুম ছাইদুর রহমান সরকারের (ছন্দু মিঞা) ৪৬ তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত হয়। তিনি ছিলেন বাঁশগাড়ী বাসীর গর্ব এবং মুক্তিযুদ্ধের বিশিষ্ট সংগঠক। এছাড়াও, তিনি জনপ্রিয় সমাজ সেবক ছিলেন।

ছন্দু মিঞা রায়পুরা উপজেলার শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য জীবন বাজী রেখে কাজ করে গেছেন। এলাকার বিপথগামী লোকদের আক্রমণে তার জীবন বিপন্ন হওয়ার সময় তার দুই ভাই জীবন দিয়ে তাকে রক্ষা করেন। অথচ চলাফেরার জন্য তার ধন সম্পদের অভাব ছিল না। তিনি যতদিন বেঁচে ছিলেন ততদিন সমাজের জন্য কাজ করে গেছেন।

এখন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছন্দু মিঞার ছেলেমেয়েরা প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। তার ছেলে ফাইজুর রহমান (বাছেদ) সরকার একজন বড় শিল্পপতি। এবং তার আরেক ছেলে মোখছলেছুর রহমান সরকার এল,জি,আর,ডি মন্ত্রণালয়ের যুগ্ন সচিব। ছন্দু মিয়া পরিবারের সাথে সম্পর্কিত সকল সদস্যদের নিয়ে গঠন করা হয় ছাইদুর রহমান সরকার ছন্দু মিয়া ফাউন্ডেশন। সেই ছন্দু মিয়া ফাউন্ডেশন থেকে শিক্ষা বৃত্তি দেওয়া হয়, গরিব দুঃস্থদের বিভিন্ন ধরনের সাহায্য করা হয়। শিক্ষা বিস্তারের জন্য ছাইদুর রহমান সরকার ছন্দু মিয়া ফাউন্ডেশন বাঁশগাড়ী কলেজের “প্রতিষ্ঠাতা” হয়েছেন।

উল্লেখ্য তার ছেলে ফাইজুর রহমান সরকারও বাঁশগাড়ী কলেজের একজন “প্রতিষ্ঠাতা”। তার আরেক ছেলে মরহুম সরকার হাফিজুর রহমান (সাহেদ সরকার) বাশগাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং সভাপতি, সাবেক চেয়ারম্যান এবং চরমেঘনা প্রাথমিক বিদ্যালয় এর প্রতিষ্ঠাতা।

মরহুম সাইদুর রহমান (ছন্দু মিঞা) সরকারের আত্তার মাগফেরাত কামনায় চরমেঘনা প্রাথমিক বিদ্যালয় এর সকল ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে খাবার বিতরণ,দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছিলো। এবং মরহুমের পরিবার ও সাইদুর রহমান সরকার (ছন্দু মিঞা) ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে মরহুমের গ্রামের বাড়ি রায়পুরা থানার বাঁশগাড়ীতে মিলাদ মাহফিল, এতিমখানায় খাবার বিতরণ ও সবার দোয়া প্রার্থনা করা হয়েছে।