ঢাকা সোমবার, ২০শে মে ২০১৯, ৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬


আয়ারল্যান্ডকে হেসেখেলে টাইগারদের হ্যাট্রিক জয়


১৬ মে ২০১৯ ০০:১১

আপডেট:
১৬ মে ২০১৯ ০০:৩২

আয়ারল্যান্ডকে হেসেখেলেই জয় পেল বাংলাদেশ। ২৯৩ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৪২ বল হাতে রেখে ৬ উইকেটের জয় পায় টাইগাররা। মাশরাফিদের এটা হ্যাটট্রিক জয়। এর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দুই ম্যাচে টানা পরাজিত করে টাইগাররা।

জয়ের ম্যাচে সর্বোচ্চ ৭৬ রান করেন লিটন দাস। এছাড়া ৫৭ ও ৫০ রান করেন তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান। তার আগে বোলিংয়ে ৫ উইকেট শিকার করেন আবু জায়েদ রাহী।

আইরিশদের বিপক্ষে টার্গেট তাড়া করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা করেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। উদ্বোধনীতে ১১৭ রান করেন তারা। শতরানের জুটি গড়ার পথে দুজনেই ফিফটি করেন।

ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৪৬তম ফিফটি করে সাজঘরে ফেরেন তামিম। তার আগে ৫৩ বলে ৯টি চারের সাহায্যে ৫৭ রান করেন বাংলাদেশ সেরা এই ওপেনার। ওয়ানডে ক্রিকেটে ৪৬টি ফিফটি ছাড়াও দেশের হয়ে সর্বোচ্চ ১১টি সেঞ্চুরি রয়েছে তামিমের।

ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ২৮তম ম্যাচে দ্বিতীয় ফিফটি করেন লিটন দাস। দেশের হয়ে এর আগে একটি সেঞ্চুরি করেছেন তিনি। একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে যাওয়া লিনট ৬৭ বলে ৯টি চার ও এক ছক্কায় ৭৬ রান করে সাজঘরে ফেরেন।

তার বিদায়ের পর মুশফিকুর রহিমকে সঙ্গে নিয়ে দলের হাল ধরেন সাকিব আল হাসান। তৃতীয় উইকেটে তারা ৬৪ রানের জুটি গড়েন। ৩৩ বলে ৫টি চারের সাহায্যে ৩৫ রান করে আউট হন মুশফিক।

শেষ দিকে জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ৮৪ বলে মাত্র ৪৬ রান। ইনিংসের ৩৬তম ওভারে আইরিশ পেসার ব্যারি ম্যাককার্থির বলে সজোরে মারতে গিয়ে বাম পাশের পেশিতে টান লাগে সাকিবের।

ব্যথা অনুভব করায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন সাকিব। সাইড বেঞ্চে বসে থাকা ফিজিও দ্রুত মাঠে এসে সাকিবকে সাময়িক শুশ্রূষা দেন।

তবে খেলার জন্য নিজেকে ফিট না মনে করায় ৫০ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ থেকে প্যাভেলিয়নে ফেরেন সাকিব। তার পরিবর্তে ক্রিজে আসেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। তিনি ১৭ বলে ১৪ রান করে ফেরেন।

এরপর সাব্বির রহমান রুম্মনকে সঙ্গে নিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ২৯ বলে দুটি চার ও সমান ছক্কায় অপরাজিত ৩৫ রান করেন রিয়াদ।

এর আগে টাইগারদের বাজে ফিল্ডিং ও পল স্টার্লিংয়ের সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে ২৯২ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে আয়ারল্যান্ড।

বুধবার ডাবলিনের ক্যাস্টল এভিনিউতে অনুষ্ঠিত ম্যাচে বাংলাদেশের ফিল্ডাররা একাধিক সহজ ক্যাচ মিস করেন। এর সুবাদে চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ার সুযোগ পায় স্বাগতিক আইরিশ ক্রিকেট দল।

দলের হয়ে সর্বোচ্চ ১৩০ রান করেন স্টার্লিং। তার ইনিংসটি ১৪১ বলে ৮টি চার ও ৪টি ছক্কা সাজানো। এছাড়া ১০৬ বলে সাতটি চার ও ২টি ছক্কায় ৯৪ রান করেন অধিনায়ক পোটরফিল্ড। বাংলাদেশ দলের হয়ে ৯ ওভারে ৫৮ রান খরচ করে ৫ উইকেট শিকার করেন আবু জায়েদ রাহী। এছাড়া দুই উইকেট নেন সাইফউদ্দিন।


সংক্ষিপ্ত স্কোর:

আয়ারল্যান্ড: ৫০ ওভারে ২৯২/৮ (স্টার্লিং ১৩০, পোটরফিল্ড ৯৪; রাহী ৫/৫৮, সাইফউদ্দিন ২/৪৩)।

বাংলাদেশ: ৪৩ ওভারে ২৯৪/৪ (লিটন ৭৬, তামিম ৫৭, সাকিব ৫০, মাহমুদউল্লাহ ৩৫*, মুশফিক ৩৫, মোসাদ্দেক ১৪, সাব্বির ৭*)।

ফল: বাংলাদেশ ৬ উইকেটে জয়ী।


আগামী শুক্রবার ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।


নতুনসময়/এনএইচ