ঢাকা বুধবার, ২৪শে জুলাই ২০১৯, ৯ই শ্রাবণ ১৪২৬

মেগাপিক্সেল থেকে ডুয়ালফ্রন্ট ক্যামেরা, যেভাবে শুরু হলো অপো’র বিবর্তনের যাত্রা


১০ এপ্রিল ২০১৯ ১৮:৫৯

আপডেট:
২৪ জুলাই ২০১৯ ০১:৩৮

বিশ্বজুড়ে ক্রমবর্ধমানভাবে স্মার্টফোনের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জনপ্রিয় হচ্ছে স্মার্টফোনে ছবি তোলা। সেইসঙ্গে স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোও একে অন্যের সাথে পাল্লা দিয়ে ক্রেতাদের সাশ্রয়ী মূল্যে সর্বোচ্চ মানসম্পন্ন স্মার্টফোন ক্যামেরা সরবরাহ করছে। খুব বেশিদিন আগের কথা নয়। কয়েক বছর আগেও স্মার্টফোনে দূর্দান্ত ফিচারসমৃদ্ধ ও উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ক্যামেরা পেতে চাইলে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের উচ্চমূল্যের ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস বাদে অন্যকোন বিকল্প ব্যবস্থা ছিলো না। বাজারে বেড়ে যাচ্ছিলো মাঝারি দামের শক্তিশালী ক্যামেরাযুক্ত এবং একইসাথে দেখতেও দারুণ স্মার্টফোনের চাহিদা। ক্রেতাদের এই যুগোপযোগী চাহিদা পূরণে ২০১৬ এর প্রথম প্রথমদিকে অপো ‘এফ’ সিরিজ নামে নতুন এক সিরিজের ফোন বাজারে আনার ঘোষণা দেয়।

১৬ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা ও ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরাযুক্ত এফ সিরিজের সর্বপ্রথম মডেল এফ ওয়ান মিড রেঞ্জের ফোনের সেগমেন্টে নতুন এক দিগন্তের সূচনা করে। ‘সেলফি এক্সপার্ট’ নামে এফ মডেলের দ্বিতীয় মডেল এফ ওয়ান প্লাস ফোন ক্যামেরার প্রচলিত ধারণা পাল্টে দিয়ে ১৩ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরার বিপরীতে সেলফি প্যানারোমা, বিউটিফাই ৪.০ ও ফ্রন্ট ফেসিং স্ক্রিন ফ্ল্যাশযুক্ত ১৬ মেগাপিক্সেল হাই-লাইট ফ্রন্ট ক্যামেরা যুক্ত করে। এক্ষেত্রে, প্রতিষ্ঠানটি গুরুত্ব দেয় তরুণদের সেলফি তোলার প্রবণতা ও তাদের চমকপ্রদ সেলফি তোলার অভিজ্ঞতা দেয়ার ওপর।

এফ সিরিজের ক্ষেত্রে ফটোগ্রাফিতে প্রাধান্য দেবার ধারাবাহিকতায় ব্র্যান্ডটি এফ থ্রি মডেলে যুক্ত করে গ্রুপ সেলফি তোলার উপযোগী ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা। এফ থ্রি মডেলে ডুয়াল ফ্রন্ট ক্যামেরা দেবার মাধ্যমে অপো প্রথমবারের মতো তাদের কোন মডেলে ডুয়াল ফ্রন্ট ক্যামেরা যুক্ত করে। এই ফোনে থাকা বিশেষ সেন্সর তিনের অধিক মানুষ সনাক্ত করা মাত্র স্বয়ংক্রিয়ভাবে ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা চালু হয়ে যাবার প্রযুক্তিটি এই স্মার্টফোনটিকে বাজারে প্রতিদ্বন্দ্বী অন্যান্য ফোনের মাঝে পরিণত করে অনন্য এক ডিভাইসে। জনপ্রিয়তা লাভ করে ক্রেতাদের মাঝে।

‘সেলফি এক্সপার্ট’ খ্যাত এফ সিরিজের ফোনগুলোতে বরাবরই চমক তৈরির ধারাবাহিকতায় এফ ফাইভ মডেলটিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) প্রযুক্তির সমন্বয় ঘটিয়ে সাবজেক্টের ফেসিয়াল ফিচারগুলোর সাথে কোম্পানি ডাটাবেজে থাকা ফেসিয়াল রেফারেন্সের মিশ্রণ ঘটানোয় এই ফোনটি প্রাণবন্ত সেলফি আউটপুট দিতে সক্ষম হয়। স্মার্টফোনে প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনে নবতর যুগের সূচনা করার ধারাবাহিকতায় পরবর্তী ধাপে অপো এফ সেভেনে পাশাপাশি, প্রথমবারের মতো কোন স্মার্টফোনে যুক্ত হয় কোয়াড এইচডি ও হাই ডেনসিটি পিক্সেল ডিসপ্লে।

এফ সিরিজের এ ধারাবাহিক উদ্ভাবনই একে মাঝারি দামের অন্যতম এক সিরিজে পরিণত করে। এফ সিরিজের পূর্বের সকল প্রযুক্তিসমৃদ্ধ ও নবতর থ্রিডি ফেসিয়াল রিকগনিশন প্রযুক্তি সমৃদ্ধ অপো এফ টেনও ক্রেতাদের মাঝে আলোড়ন তৈরি করে।

সেলফি জগতে দীর্ঘসময় ধরে রাজত্ব বিস্তার করা অপো এফ সিরিজের সিংহাসন যে সহসাই কোন প্রতিদ্বন্দ্বিতার সম্মুখীন হচ্ছে না এর প্রমাণ আবারো পাওয়া ফেলো এফ ইলেভেন প্রো মডেলটি বাংলাদেশের বাজারে আনার ঘোষণা দেবার মাধ্যমে। এফ সিরিজের ফোনগুলোতে বরাবরই চমকপ্রদ সব উদ্ভাবনের জন্ম দেয়ার যে স্বাক্ষর অপো রেখে চলেছে, এর ধারাবাহিকতা এফ ইলেভেন প্রো মডেলটির ক্ষেত্রেও যে বহাল থাকবে এটি সহজেই অনুমিত। জানা গেছে, তরুণদের পছন্দের শীর্ষে থাকা ‘সেলফি এক্সপার্ট’ খ্যাত অপো এফ সিরিজের অভাবনীয় সব ফিচারসমৃদ্ধ এফ ইলিভেন প্রো মডেলটি বাংলাদেশের বাজারে বিক্রয়ের ঘোষণা আসতে পারে যেকোন মুহূর্তে।