ঢাকা সোমবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ই আশ্বিন ১৪২৬


সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য বড় সুখবর


৭ আগস্ট ২০১৯ ১৮:৫৩

আপডেট:
৭ আগস্ট ২০১৯ ১৯:২১

চলতি মাসের (আগস্ট) মধ্যেই ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা, পেনশন, জিপি ফান্ড এবং ভ্রমণ সংক্রান্ত ব্যক্তিগত পাওনা পরিশোধের নির্দেশ দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

বুধবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের যুগ্ম সচিব সিরাজুন নুর চৌধুরী স্বাক্ষরিত একটি পরিপত্র জারি করা হয়েছে।

এতে বলা হয়, পরিপত্র অনুসারে ইস্যুকৃত চেকের মধ্যে কিছু সংখ্যক যথাসময়ে ব্যাংকে জমা না দেয়ায় চেকের মেয়াদোত্তীর্ণ হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে চেক প্রাপকরা যাতে তাদের পাওনা থেকে বঞ্চিত না হন সে জন্য সরকার জুন মাসে ইস্যু করা চেক নগদায়নের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে- বেতন-ভাতা, পেনশন, জিপি ফান্ড এবং ভ্রমণ সংক্রান্ত ব্যক্তিগত পাওনা পরিশোধের লক্ষ্যে ইস্যু করা মেয়াদোত্তীর্ণ চেকসমূহ চেক ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষের কাছে আগস্ট মাসের মধ্যে জমা দিতে হবে। চেক ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চেকে প্রদত্ত অর্থ নগদায়ন করা হয়ে থাকলে ওই চেক বাতিল করে নতুন চেক ইস্যুর ব্যবস্থা নেবে।

বেতন-ভাতা, পেনশন, জিপি ফান্ড এবং ভ্রমণ সংক্রান্ত চেকের বাইরে অন্যান্য তামাদি চেক পুনরায় ইস্যুর ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/দফতর/সংস্থার বিভাগীয় প্রধান কর্তৃক চেক সময়মতো না ভাঙানোর কারণ এবং এ সংক্রান্ত কাজ ও সরবরাহ যথাযথভাবে সম্পন্ন করা হয়েছে মর্মে প্রত্যয়নসহ আগস্ট ২০১৯ মাসের মধ্যে চেক ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করতে হবে।

তবে ১ লাখ বা তদূর্ধ্ব অঙ্কের চেকের ক্ষেত্রে মন্ত্রণালয়/বিভাগের সচিবের প্রত্যয়ন নিতে হবে। চেক ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষ আবেদনসমূহ এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রত্যয়ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চেকে প্রদত্ত অর্থ নগদায়ন করা না হলে ওই চেক বাতিল করে নতুন চেক জারির ব্যবস্থা নেবে।

পরিপত্রে বলা হয়, আগস্ট মাসের পরে মেয়াদোত্তীর্ণ চেক পুনরায় ইস্যু করার বিষয়ে সম্মতির জন্য নিমোক্ত তথ্যাবলীসহ প্রস্তাব অর্থ বিভাগে পাঠাতে হবে।

এগুলো হচ্ছে- বেতন-ভাতা, পেনশন, জিপি ফান্ড এবং ভ্রমণ সংক্রান্ত চেকের ক্ষেত্রে প্রস্তাবের সঙ্গে চেক সময়মতো না ভাঙানোর কারণ, চেক নগদায়ন করা হয়নি মর্মে চেক ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষের প্রত্যয়ন এবং ব্যাংকের নন-পেমেন্ট সার্টিফিকেটসহ প্রস্তাব সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগের মাধ্যমে অর্থ বিভাগে পাঠাতে হবে।

অন্যান্য চেকের ক্ষেত্রে প্রস্তাবের সঙ্গে চেক সময়মতো না ভাঙানোর কারণ এবং এ সংক্রান্ত কাজ ও সরবরাহ যথাযথভাবে সম্পন্ন করা হয়েছে মর্মে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ/দফর/সংস্থার বিভাগীয় প্রধান/সচিবের প্রত্যয়ন, চেক নগদায়ন করা হয়নি মর্মে চেক ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষের প্রত্যয়ন এবং ব্যাংকের নন- পেমেন্ট সার্টিফিকেটসহ প্রস্তাব সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগের মাধ্যমে অর্থ বিভাগে পাঠাতে হবে।

নতুন চেক ইস্যুর এ কার্যক্রম আগস্ট মাসের মধ্যে শেষ করতে হবে। সংশ্লিষ্ট প্রধান হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তারা বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ/দফতর/সংস্থা ভিত্তিক জমাকৃত মেয়াদোত্তীর্ণ চেকের স্থলে ইস্যু করা নতুন চেকের তালিকা আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখের মধ্যে অর্থ বিভাগ, অর্থ মন্ত্রণালয় ও হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে পাঠাবেন।