ঢাকা মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট ২০২১, ১৯শে শ্রাবণ ১৪২৮


ইসরায়েলে ধর্মীয় উৎসবে পদদলিত হয়ে বহু মানুষের মৃত্যু


৩০ এপ্রিল ২০২১ ১১:৩৬

সংগৃহিত

ইসরায়েলে একটি ধর্মীয় উৎসবে পদদলিত হয়ে বহু মানুষ হতাহত হয়েছে। ইসরায়েলের ন্যাশনাল এমারজেন্সি সার্ভিস মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করলেও ঠিক কতজন মারা গেছে- সেটির হিসেব দেয়নি।

ইসরায়েলের সংবাদপত্র হারেৎজ জানিয়েছে, এই ঘটনায় ৩৮ জন নিহত হয়েছে। জরুরি সেবা কর্মীরা উদ্ধার কাজ পরিচালনা করছে।

প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু এই ঘটনাকে 'বড় বিপর্যয়' হিসেবে বর্ণনা করেছেন। মেরন পর্বতের পাদদেশে লাগ বি'ওমের নামের এই ধর্মীয় উৎসবটি অনুষ্ঠিত হয়। খবর বিবিসির

করোনাভাইরাস মহামারি শুরুর পর থেকে ইসরায়েলে এটি হচ্ছে সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জরুরি সেবা বিভাগ জানিয়েছে, দুর্ঘটনায় ৩৮ জনের অবস্থা সংকটাপন্ন। টুইটারে এক বার্তায় জরুরি সেবা বিভাগ বলছে, আহতদের উদ্ধার করার জন্য তারা সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

প্রথম দিকে মনে হয়েছিল, উৎসবস্থলে কোন স্থাপনা ভেঙ্গে এই ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু পরবর্তীতে জরুরি সেবা বিভাগ জানিয়েছে, সেখানে পদদলিত হবার ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশের সূত্রগুলো হারেৎজ পত্রিকাকে জানিয়েছে, উৎসবে অংশগ্রহণকারী কিছু মানুষ পা পিছলে পড়ে যাবার মাধ্যমে ঘটনার সূত্রপাত হয়। এরপর তাদের উপর আরো অনেকে এসে পড়ে।

একজন প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, 'এই ঘটনা মুহূর্তের মধ্যে ঘটে যায়। মানুষজন একজন আরেকজনের উপর এসে পড়ে যায়। এটা ছিল একটা বিপর্যয়।'

আরেকজন ভেবেছিলেন, এটি একটি বোমা হামলার সতর্কবার্তা ছিল। তিনি বলেন, 'কেউ ভাবতে পারেনি যে এই ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে। আনন্দ শোকে পরিণত হয়েছে।'

এর আগে কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বিপুল মানুষের উপস্থিতির কারণে উৎসবস্থলে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে বিধি-নিষেধ আরোপ করা সম্ভব হবে না।

প্রতি বছর অর্থোডক্স ইহুদিরা মেরন পাহাড়ের পাদদেশে লাগ বি'ওমের নামের এই ধর্মীয় উৎসবে অংশ নেয়। আগুন জ্বালানো, প্রার্থনা করা এবং নাচের মধ্যদিয়ে এই ধর্মীয় উৎসবটি পালন করে অর্থোডক্স ইহুদিরা।

টাইমস অব ইসরায়েলের খবর অনুযায়ী, এই উৎসবে অংশ নিতে বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত প্রায় এক লাখ মানুষ জড়ো হয়েছে। এছাড়া শুক্রবারে আরো মানুষের অংশ নেবার কথা ছিল।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে গত বছর এই ধর্মীয় উৎসবের ক্ষেত্রে বিধি-নিষেধ ছিল। কিন্তু ইসরায়েলের সফল টিকাদান কর্মসূচীর কারণে সম্প্রতি বহু বিধি-নিষেধ তুলে নেয়া হয়েছে।