ঢাকা শুক্রবার, ১৫ই নভেম্বর ২০১৯, ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৬


রাজধানীতে চলছে এডিস মশা নির্মূলে ডিএনসিসির ‘চিরুনি অভিযান’ অব্যাহত


৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৭:৫৮

আপডেট:
১৫ নভেম্বর ২০১৯ ০১:৩১

ছবি-নতুনসময়

এডিস মশা নির্মূলে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ‘চিরুনি অভিযান’ ও ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত রয়েছে। পরিচ্ছন্নতা ও মশক নিধনকর্মীগণ মঙ্গলবার চিরুনি অভিযানের দশম দিনে ডিএনসিসির ৩৬টি ওয়ার্ডে ১১ হাজার ১৮২টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে মোট ৯০টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা খুঁজে পায়। লার্ভা পাওয়া এ সব বাড়ি ও স্থাপনায় ‘এ বাড়ি/স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়’ লেখা স্টিকার লাগানো হয়। এ ছাড়া ৬ হাজার ৫৬২টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার বংশবিস্তার উপযোগী স্থান/জমে থাকা পানি পাওয়া যায়। এডিস মশার বংশবিস্তারের উপযোগী এ সকল স্থান ধ্বংস করা হয়। প্রতিটি ওয়ার্ডের সংশ্লিষ্ট কাউন্সিলরগণ ‘চিরুনি অভিযান’ সক্রিয়ভাবে তত্বাবধান করছেন।

গত ২৫ আগস্ট থেকে ১০ দিনে ৩৬টি ওয়ার্ডে সর্বমোট ১ লক্ষ ৬ হাজার ৯৮২টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে মোট ১ হাজার ৮৯৩টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা খুঁজে পাওয়া যায়। এ ছাড়া ৫৮ হাজার ১৫টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার বংশবিস্তার উপযোগী স্থান/জমে থাকা পানি পাওয়া যায়। সেসব স্থানগুলো ধ্বংস করে লার্ভিসাইড প্রয়োগ করা হয়। চিরুনি অভিযানকালে মাটির পাত্র, ফুলের টব, পানির ট্যাংকের নিচ, ড্রাম, চিপ্সের প্যাকেট, পরিত্যক্ত পানির হাউজ, কলসি, পরিত্যক্ত বেসিন, কমোড ও টয়লেটের ফ্লাশ, বালতি, টায়ার, খাবারের প্লাস্টিক-প্যাকেট, লিফটের নিচ, নির্মাণাধীন ভবন, ডোবা, পলিথিন, ডাবের খোসা, নিচু জায়গা, ছোট পাত্র, নারিকেলের মালা, পানির ড্রাম, মাটির হাড়ি, প্লাস্টিকের পাত্র, বাড়ির ছাদ, দুই বাড়ির মধ্যবর্তী স্থান, ওয়াসার মিটার, গ্যারেজ ইত্যাদি জায়গায় এডিস মশার লার্ভা এবং এডিস মশা বংশবিস্তার উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

এডিস মশা নির্মূলে আজও ডিএনসিসির ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত ছিল। মিরপুরে ২টি নির্মাণাধীন ভবনে এডিস মশার লার্ভার উপস্থিতি পাওয়া গেলে মোট ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

এডিস মশা নির্মূলে বছরব্যাপী ডিএনসিসির কর্মসূচি ও ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত থাকবে।