ঢাকা বৃহঃস্পতিবার, ৩রা ডিসেম্বর ২০২০, ২০শে অগ্রহায়ণ ১৪২৭


ইতালিতে এক প্রবাসী বাংলাদেশির রহস্যজনক মৃত্যু


১৯ নভেম্বর ২০২০ ১৪:০৮

আপডেট:
৩ ডিসেম্বর ২০২০ ০৬:৩২

সংগৃহিত

ইতালির রোমে মোঃ মাজাহারুল হক নয়ন নামে এক বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। নিহতের পরিবারকে না জানিয়ে সেখানেই তার মরদেহ দাফন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে পরিবার।

নিহতের পরিবার একে হত্যাকাণ্ড বলে অভিযোগ করেছে। একই সাথে হত্যার বিচার দাবি করেছে।

নিহতের মেয়ে মাশরুফা হক নোভা নিজের ফেজবুক পেজে জানান, আমার বাবা মোঃ মাজাহারুল হক (নয়ন) গত ৪ নভেম্বর বাংলাদেশ থেকে ইতালিতে যান। এর আগে ৩ নভেম্বর তার সংগৃহিত করোনা টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ ছিলো। পরে ১১ নভেম্বর ইতালিতে বাবার এক কাছের বন্ধুর কাছ থেকে জানতে পারি তিনি ইতালি সময় সকাল ১১ টা ৪৫ মিনিটে ইন্তেকাল করেছেন। তারা মৃত্যুর কারণ বলেছে হার্ট এটাক করে এবং তারা বলেছে তার করোনা পজেটিভ থাকতে পারে।

মেয়ে মাশরুফা হক নোভা বলেন, আমার বাবা ১০ নভেম্বর আমাদের সাথে সম্পূর্ণ সুস্থ ভাবে ভিডিও কলে কথা বলেছেন। প্রায় ১ ঘন্টা কথা বললেও তিনি করোনার উপসর্গেরও কথা জানাননি। তার করোনার মিনিমাম সিম্পটম হাচি কাশি কিছুই ছিল না। মৃত্যুর আগে আমার বাবার সাথে তার বিজনেস পার্টনার এর কথা কাটাকাটি হয় এবং বিজনেস পার্টনার তাকে সরাসরি মেরে ফেলার হুমকি দেন।

তিনি আরও জানান, মৃত্যুর খবর পেয়ে আমরা পরবর্তীতে বাবার লাশ দেশে আনার জন্য আমরা সকল ভাবে তার বন্ধুদেরকে এবং বিজনেস পার্টনারকে অনুরোধ করেছি। তারা আমাদেরকে আশ্বাসও দিয়েছিল মরদেহ দেশে পাঠাবে। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে তারা আমাদের অনুমতি ব্যতীত লাশ সেখানে দাফন করে।
পরে তারা বাবার কবরের ছবি পাঠিয়েছে কিন্তু এর আগে তারা আমাদের কিছুই জানায়নি। আমরা কোনভাবেই তাদেরকে অনুমতি লাশ দাফনের অনুমতি দেইনি। বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় আমাদের অবস্থা এখন সকল দিক থেকে শোচনীয় আমরা কার্যকরী ভাবে কোন সাহায্য পাইনি। এমন কি তার মৃতদেহ আমরা দেশে মাটিও দিতে পারিনি।

তার মৃত্যুর আসল কারণটা কি আমরা সেটাও জানতে পারিনি! তার মৃত্যুটি খুবই রহস্যজনক! ফেসবুক স্টাটাসে মেয়ে মাশরুফা হক নোভা আরও লিখেন, তার বাবার মৃত্যুর কোন প্রকার ডকুমেন্ট যথা-
Death certificate, করোনা পজেটিভ না নেগেটিভ সেই report, কিংবা Heart attack report এমন কোন প্রকার তথ্য আমরা পাইনি। তাই আমি ভারাক্রান্ত হৃদয়ে বলবো যারা আমার বাবার প্রতি অন্যায় করেছে অবিচার করেছে তাদের শাস্তি আমি কামনা করি।