ঢাকা সোমবার, ২০শে মে ২০১৯, ৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬


রমজানে রাজধানীতে মাংসের দাম নির্ধারণ করেছে ডিএসসিসি


৬ মে ২০১৯ ১৬:২০

আপডেট:
৬ মে ২০১৯ ১৬:২২

পবিত্র রমজান মাসের প্রথম দিন থেকে ২৬ রমজান পর্যন্ত রাজধানীতে মাংসের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি)।

সোমবার (৬ এপ্রিল) দুপুরে ডিএসসিসির নগর ভবনে মাংস ব্যবসায়ী প্রতিনিধিসহ ডিএসসিসি ও ডিএনসিসি কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এই দাম নির্ধারণ করা হয়।

বেঠকে নির্ধারিত দাম অনুযায়ী মঙ্গলবার (৭ মে) থেকে রাজধানীতে দেশি গরুর মাংস প্রতি কেজি ৫২৫ টাকা এবং বিদেশি বা বোল্ডার গরুর মাংস প্রতি কেজি ৫০০ টাকা ও মহিষের মাংস ৪৮০ টাকা দরে বিক্রি করতে হবে। সেই সঙ্গে খাসির মাংস প্রতি কেজি ৭৫০টাকা এবং ভেড়া ও ছাগীর মাংস প্রতি কেজি ৬৫০ টাকা দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।

এ সময় মেয়র সাঈদ খোকন বলেন, কোনো ব্যবসায়ী সিটি কর্পোরেশন নির্ধারিত দামে মাংস বিক্রি না করে বেশি দামে বিক্রি করলে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি বলেন, আমরা এর আগে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। তারা জানিয়েছেন দ্রব্যমূল্য গত বছরের তুলনায় এবার কোনোভাবেই বাড়বে না, বরং কিছুটা হলেও কমবে। হোটেল-রেস্তোরাঁ মালিকদের সঙ্গেও বৈঠক করেছি। তারাও যাতে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার রাখে সে জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আজ (সোমবার) মাংসের দামও নির্ধারণ করা হল। এতে যেন কোনো অনিয়ম না হয় সেজন্য মঙ্গলবার থেকে ডিএসসিসির মনিটরিং টিম বাজার তদারকিতে নামবে। কারো বিরুদ্ধে কোনো অনিয়মের অভিযোগ বা প্রমাণ পেলে সেই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এর আগে বৈঠকে মেয়রের কাছে মাংস ব্যবসায়ীরা নানা অভিযোগ তুলে ধরে বলেন, গরুর মাংসের দাম বাড়ার পেছনে অন্যতম কারণ হল গাবতলী হাটের কতিপয় চাঁদাবাজের উৎপাত। তাদের কারণে গরু প্রতি ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা পযর্ন্ত খাজনা দিতে হয়। তাদেরকে নিয়ন্ত্রণ করা গেলে মাংসের দামও অনেক কমে যাবে। এতে জনগণ উপকৃত হবে। বৈঠকে মাংস ব্যবসায়ী এবং সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

নতুনসময়/এনএইচ