ঢাকা মঙ্গলবার, ২২শে সেপ্টেম্বর ২০২০, ৮ই আশ্বিন ১৪২৭


করোনা যুদ্ধে অবদান রেখে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা কুড়ালেন রাজিবপুরের ইউএনও


১৮ মে ২০২০ ১৩:০১

আপডেট:
১৮ মে ২০২০ ১৭:৪৪

ফাইল ছবি

কুড়িগ্রাম জেলা সদর থেকে বিচ্ছিন্ন একটি উপজেলা চর রাজিবপুর। নিম্ন আয়ের মধ্যে দিয়েই এখানকার মানুষের জীবনযাপন।উন্নয়নের সকল সম্ভাবনায় ভরপুর হওয়া সত্ত্বেও শুধুমাত্র সঠিক নেতৃত্ব ও সদিচ্ছার অভাবে এখানকার মানুষ উন্নয়নের ছোয়া থেকে বঞ্চিত। এই অবস্থায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে যোগদান করেন জনাব মেহেদী হাসান। মাত্র ২ বছরে তিনি উন্নয়নের সকল দ্বার উন্মোচিত করেছেন।সম্ভাবনাময় করেছেন প্রতি টি সেক্টর।

জনপ্রতিনিধিদের সাথে নিয়ে প্রতিটা মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে জন সাধারণের মধ্যমনি হয়ে উঠেছেন।
প্রশাসনের সর্বোচ্চ দায়িত্ব পালন করেও মিশে গেছেন সাধারণ মানুষের সাথে, সার্বক্ষনিক খোজ খবর নিয়েছেন দিনমুজুর, অভাবী ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের।

করোনার প্রাক্কালে একজন করোনা যুদ্ধা হয়ে উঠেছেন তিনি।যেখানে নিজ বাসায় আরাম আয়েশে দিন কাটাতে পারতেন,সেখানে সারাক্ষণ মাঠে থেকে মানুষের সাথে মিশে গিয়ে কাজ করছেন।

আয়ের রাস্তা বন্ধ হওয়ার কারনে নিম্ন আয়ের মানুষগুলো ঘরে ঘরে নিজ হাতে খাবার পৌছে দিয়েছেন।

পুরো উপজেলায় ৪৫টি ইউনিট গড়ে তুলেছেন, যেখানে ৪৫০ জন যুবক তরুন স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করেছেন প্রতিটা বাজার, রাস্তা ও গ্রামে।

তরুন ও যুবক দের শক্তি কে কাজে লাগিয়ে প্রতিটা গ্রামে করোনা সচেতনতা ইউনিট গড়ে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয়প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা কুড়িয়েছেন।


ধর্মীয় ভাব গাম্ভীর্যের মধ্যে থেকে উপজেলায় মাদক, ইয়াবা,বাল্যবিবাহ ও সকল প্রকার অন্যায় এর বিরুদ্ধে সোচ্চার থেকে একটি মানবিক উপজেলা গড়ে তুলেছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গিয়েছে যে,তিনি সর্বোস্তরের মানুষের ভালবাসায় সিক্ত এবং সকলের প্রত্যাশা এমন ইউ এন ও (UNO)প্রতিটা উপজেলায় থাকলে,পুরো বাংলাদেশের চিত্রই পাল্টে যেতো।